বন্যায় রিনা বেগমের মাচা পদ্ধতিতে ছাগল লালনপালন

সোমবার, মার্চ 1, 2021

রিনা বেগম তার স্বামী আব্দুর রহমানের সাথে ফরিদপুর জেলার, ডিক্রিরচর ইউনিয়নের (ওয়ার্ড ৯) আধু মাতব্বরের ডিঙিতে বসবাস করছেন। তার স্বামী একজন রাজমিস্ত্রি যে দিনমজুর হিসাবে কাজ করে এবং তার একটি ছেলে ও একটি মেয়ে আছে। তিনি পদ্মা নদীর পাশেই বসবাস করছেন

যার কারণে প্রতি বছরই বন্যায় তাদের বাড়ি এবং আশেপাশের স্থান পানিতে নিমজ্জিত হয়, যারফলে তার ছাগল এবং হাঁস মুরগি উঁচু রাস্তার ধারে বা আত্মীয়স্বজনের বাড়িতে রাখতে হয়, এমনকি প্রতিবছর বন্যার আগেই তারা তাদের ছাগল এবং হাঁস মুরগি কম দামে বিক্রি করে দিত। তারপর বন্যা শেষ হয়ে গেলে তারা আবার ছাগল ভাড়া নিয়ে পালন করত বা বেশি দাম দিয়ে ছাগল কিনতো। তদুপরি, তাঁর স্বামী অর্ধেক বছর কাজ করে উপার্জন করতে পারত এবং অর্ধেক বছর কোনো কাজের সুযোগ থাকত না। সর্বোপরি প্রতিবছরের সীমিত কাজের সুযোগ এবং বন্যার অভিজ্ঞতা তাদেরকে আরো বেশি দারিদ্র্য এবং মূল্যহীন করে ফেলছিল।

জুরিখ বন্যা সহনশীল প্রকল্প থেকে প্রাপ্ত মাচা পদ্ধতিতে ছাগল পালনের জন্য উঁচু করে তৈরী করে দেওয়া ঘর। ছবি : তপন টিকুম কর্মকার 

রিনা বেগম আমাদের গ্রুপের একজন সদস্য, যিনি নিয়মিত উঠান বৈঠকে এবং অন্যান্য সম্মিলিত বৈঠকে অংশগ্রহণ করেছেন। তার আগ্রহ এবং ছাগল পালনের অভিজ্ঞতা তাকে আমাদের ছাগল পালন ট্রেনিংএ তালিকাভুক্ত হতে সহায়তা করে এবং সে ১০৯৫৫ টাকা নগদ অর্থ ছাগল পালনের শেড তৈরির জন্য প্রকল্প থেকে সমর্থন হিসাবে পেয়েছিল। এর আগে তিনি বলেছিলেন যে, যদি তিনি প্রজেক্ট থেকে সমর্থন পায় তাহলে সে তার ছাগল পালন বৃদ্ধি করতে পারবে। সর্বমোট ছাগল পালনের শেড তৈরি করতে তার খরচ হয়েছে ১৬০০০ টাকা, যেহেতু বন্যা পরবর্তীতে কাজ হিসেবে তিনি ছাগল পালন করতে পারতেন এবং তার অভিজ্ঞতা ও চিন্তাভাবনা থেকেই তিনি এই কাজটি পুনরায় আরম্ভ করেন। ছাগল পালনের জন্য এমন শেড প্রস্তুত করে রিনা খুব খুশি। রিনার ছয় মাস পূর্বে দুইটা ছাগল ছিল যা এখন দ্বিগুণ হয়েছে এবং তিনি আশা করছেন শীঘ্রই এটা ছয়টা ছাগল এ উন্নীত হবে। তার এখন সর্বমোট সম্পদের পরিমাণ ৪৫ হাজার টাকা এবং বিনিয়োগ শুধুমাত্র ১৯ হাজার টাকা, যেটা দেখাচ্ছে তিনি ২৬০০০ টাকা লাভ করেছে বিগত ছয় মাসে এবং প্রতি মাসে গড়ে প্রায় চার হাজার টাকা। তিনি আরো বলেন এই মাচা পদ্ধতিতে ছাগল লালনপালন করতে পেরে আমি খুব খুশি এবং এই পদ্ধতিতে ছাগল পালনের জন্য আশেপাশের অনেকেই আগ্রহ দেখাচ্ছে।

মন্ত্যব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।


মন্তব্যসমুহ